থাইল্যান্ডে পুরুষাঙ্গ ফর্সা করার হিড়িক!

By: আন্তর্জাতিক ডেস্ক 2018-01-07 01:14:49 আজব খবর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ফর্সা হওয়ার জন্য কত কিছুই না করে থাকেন অনেকে। বিশেষ করে মহিলারা। ফেয়ারনেস ক্রিম থেকে ভেষজ উপাদান, ঘরোয়া টোটকা- কোনো কিছুই বাদ যায় না ফর্সা হওয়ার তাগিদে।

ইদানীং আবার পুরুষরাও বেশ সৌন্দর্য সচেতন হয়ে উঠেছেন। অনেক নায়ককেও ফেয়ারনেস ক্রিমের বিজ্ঞাপনে দেখা গেছে। কারণ উন্নয়নশীল কিংবা উন্নত দেশের ক্ষেত্রে আজও গায়ের রঙ প্রাধান্য পায়। শুধু বাংলাদেশ নয়, থাইল্যান্ডেও একই অবস্থা। সেদেশের পুরুষরা আরো একধাপ এগিয়ে গেছেন এই ফর্সা হওয়ার তাগিদে। কেবল মুখমণ্ডলই নয় পুরুষাঙ্গ ফর্সা করার হিড়িকও সম্প্রতি দেখা গেছে তাদের মধ্যে। আর তা রীতিমতো উন্মাদনার পর্যায়ে পৌঁছে গেছে।

বিষয়টি ভাইরাল হয়েছে থাইল্যান্ডের লেলাক্স হাসপাতালের মাধ্যমে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ পুরুষাঙ্গ ফর্সা করার চিকিৎসার একটি ভিডিও সম্প্রতি প্রকাশ করে। যা সোশ্যাল মিডিয়াতে দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়ে। যা দেখে অনেকেই পুরুষাঙ্গ ফর্সা করানোর জন্য হাসপাতালের দ্বারস্থ হচ্ছেন। হাসপাতালের মার্কেটিং ম্যানেজার জানান, এখনো পর্যন্ত একশো জনেরও বেশি এই কাজ করিয়েছেন। আর সমকামীদের মধ্যেই এ প্রবণতা দেখা যাচ্ছে।

কীভাবে হচ্ছে এই কাজ? গায়ের রঙের জন্য বেশিরভাগটাই দায়ী মেলানিন। সেই মেলানিনই লেজারের মাধ্যমে কমিয়ে দেওয়া হয়। পাঁচটি সেশনে এই কাজ করা হয়। খরচ খুব একটা বেশি নয়। বাংলাদেশি মুদ্রায় ৩০ হাজার টাকার কিছু বেশি।  প্রতিদিনই ২ থেকে ৩ জন ভিড় জমাচ্ছেন পুরুষাঙ্গ রঙ পরিবর্তনের আবেদন নিয়ে। রঙ পরিবর্তন করা এক ব্যক্তি জানান, এখন অনেকটা আত্মবিশ্বাসী বোধ করছেন তিনি। কারণ এখন নির্দ্বিধায় সুইমিং কস্টিউম পরে সৈকতে যেতে পারবেন। তার জন্য সামান্য মূল্য তো চোকানো যেতেই পারে! কিন্তু এই লেলাক্স হাসপাতালে এই পদ্ধতি থাইল্যান্ড সরকারের স্বীকৃতি প্রাপ্ত নয়। আর এ কাজে নিষেধাজ্ঞা জারি করার কথা ভাবা হচ্ছে।