বাংলা চলচ্চিত্রের যা কিছু প্রথম

By: বাবু 2018-05-05 16:21:37 স্পেশাল

বিনোদন প্রতিবেদক:  আমরা আজকের চলচ্চিত্রের অনেক খবর জানি ও জানতে চাই। অনেকের মনে তখন প্রশ্ন জাগে ঐতিহ্যে মোড়া বাংলা চলচ্চিত্রের শুরুটা কীভাবে হয়েছিল। ১৯৫৬ সালে ঢাকায় প্রথম সবাক চলচ্চিত্র ‘মুখ ও মুখোশ’ মুক্তি পেলেও এটি ঢাকার প্রথম ছবি নয়। ঢাকাই ছবিতে যা কিছু প্রথম সেটাই আজ জানানো হল। 

প্রথম ছবি: ঢাকার প্রথম ছবি ‘দ্য লাস্ট কিস’। ১৯৩১ সালে মুক্তি পায়। এটি ছিল নির্বাক ছবি। ছবিটি পরিচালনা করেন অম্বুজ গুপ্ত। এ ছবির দৃশ্যধারণ শুরু হয় ১৯২৯ সালে। ১২ রিলের এই নির্বাক ছবিটি নির্মাণ করতে ব্যয় হয় ১২ হাজার টাকা। এতে বাংলা, উর্দু ও ইংরেজি ভাষায় সাব টাইটেল করা হয়। আর ১৯৩১ সালে এটি মুক্তি পায় ঢাকার তৎকালীন মুকুল সিনেমা হলে। এই সিনেমা হলে ছবিটি প্রায় এক মাস চলেছিল। ছবিটির একটি মাত্র প্রিন্ট তৈরি হয়। ছবির নায়ক ছিলেন খাজা আজমল আর নায়িকা লোলিটা ও চারুবালা। ছবিটি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ছিল ইস্ট বেঙ্গল সিনেমাটোগ্রাফ সোসাইটি।

অম্বুজ গুপ্তই প্রথম স্বল্পদৈর্ঘ্য ছবি ‘সুকুমারী’ নির্মাণ করেন।

নায়িকা লোলিটা: তাঁর আসল নাম বুড়ি। ছবিতে তখন কোনো ভদ্রঘরের মেয়েকে অভিনয়ের জন্য পাওয়া যেত না বলে বাদামতলীর পতিতালয় থেকে বুড়িকে ‘লাস্ট কিস’ ছবির নায়িকা হিসেবে আনা হয়। নাম দেওয়া হয় লোলিটা। তার বয়স ছিল ১৪ বছর। লাস্ট কিস ছবির কাজ শেষ হওয়ার পর লোলিটা আবার তার পূর্ব পেশায় ফিরে যান।

প্রথম সবাক ছবি: মুখ ও মুখোশ। ইকবাল ফিল্মসের ব্যানারে ছবিটি নির্মাণ করেন আবদুল জব্বার খান। এর কাহিনীও লেখেন তিনি। ১৯৫৪ সালে এই ছবির নির্মাণকাজ শুরু হয় এবং ১৯৫৬ সালের ৩ আগস্ট ঢাকার রূপমহল এবং চট্টগ্রাম ও নারায়ণগঞ্জে এটি মুক্তি পায়। এতে অভিনয় করেন আবদুল জব্বার, পূর্ণিমা সেন, জহরত আরা, পিয়ারি বেগম, আমিনুল হক, সাইফুদ্দিন, গওহর জামিল, ইনাম আহমেদ প্রমুখ।

দেখে নেই অন্যান্য প্রথম:

প্রথম সিনেমা হল: পিকচার হাউস (শাবিস্তান)

সিনেমাস্কোপ ছবি: বাহানা। ১৯৬৫ সালে ছবিটি মুক্তি পায়। উর্দু এই ছবিটি নির্মাণ করেন জহির রায়হান। এতে অভিনয় করেন রহমান, কবরী প্রমুখ।

প্রথম রঙিন ছবি: বাদশা। নির্মাণ হয় ১৯৭৫ সালে। আকবর কবির পিন্টু নির্মাণ করেন তারকাবহুল এই রঙিন ছবিটি। অভিনয় করেন খসরু, শাবানা, নূতন প্রমুখ। 
প্রথম জাতীয় পুরস্কার : ১৯৭৬ সালে। সেরা ছবির পুরস্কার পায় ‘লাঠিয়াল’। সেরা পরিচালক নারায়ণ ঘোষ মিতা (লাঠিয়াল), সেরা অভিনেতা আনোয়ার হোসেন (লাঠিয়াল), সেরা অভিনেত্রী ববিতা (বাঁদী থেকে বেগম)। সেরা পার্শ্ব অভিনেতার পুরস্কার লাভ করেন ফারুক। সেরা পার্শ্ব অভিনেত্রী হন রোজী সামাদ।

প্রথম বাঙ্গালি চলচ্চিত্র নির্মাতা, তথ্যচিত্র নির্মাতা, বিজ্ঞাপনচিত্র নির্মাতা এবং চলচ্চিত্র প্রদর্শক: হীরালাল সেন। ভারতের প্রথম রাজনীতিক ছবিও তিনিই বানিয়েছিলেন। ১৯১৭ সালে এক অগ্নিকাণ্ডে তাঁর তৈরি সকল চলচ্চিত্র নষ্ট হয়ে যায়।

প্রথম তথ্যচিত্র: ইন আওয়ার মিডস্ট (১৯৪৮) পরিচালক- নাজীর আহমদ

প্রথম নারী চিত্রপরিচালক: রেবেকা (বিন্দু থেকে বৃত্ত, ১৯৭০)

প্রথম নারী সংগীত পরিচালক পরিচালক: ফেরদৌসী রহমান (রাজধানীর বুকে ছবিতে যৌথভাবে রবিন ঘোষের সঙ্গে, ১৯৬০)

প্রথম চলচ্চিত্র পত্রিকা: মাসিক সিনেমা (১৯৫০)

এফডিসি প্রতিষ্ঠিত হয়: ৩ এপ্রিল, ১৯৫৭

ফিল্ম আর্কাইভ ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠিত হয়: ১৯৭৮

এফডিসির প্রথম ছবি: আসিয়া (৪ নভেম্বর ১৯৬০) পরিচালক ফতেহ লোহানী

প্রথম সিনেমাস্কোপ চলচ্চিত্র: বাহানা (১৯৬৫) পরিচালক জহির রায়হান।

প্রথম আন্তর্জাতিক পুরষ্কারপ্রাপ্ত ছবি: জাগো হুয়া সাভেরা (উর্দু), মস্কো আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব১৯৫৯। সুতরাং (বাংলা), ফ্রাঙ্কফুট এশীয় চলচ্চিত্র উৎসব ১৯৬৫।

জনরা হিসেবে প্রথম:

মুক্তিযুদ্ধের ছবি : ওরা ১১ জন। পরিচালনা করেন চাষী নজরুল ইসলাম। আর প্রযোজনা করেন মাসুদ পারভেজ।

প্রথম শিশুতোষ চলচ্চিত্র: এমিলের গোয়েন্দা বাহিনী। যা নির্মিত হয় ১৯৮০ সালে। পরিচালনা করেছেন বাদল রহমান।

প্রথম স্পোর্টস চলচ্চিত্র: ২০১০ সালের ‘জাগো’। নির্মাণ করেন খিজির হায়াত খান।

প্রথম আদিবাসী ভাষায় চলচ্চিত্র: অং রাখাইন নির্মিত চাকমা ভাষার পূর্ণদৈর্ঘ্য ফিচার ফিল্ম ‘মর থেঙ্গারি’ (মাই বাইসাইকেল, ২০১৫)।

প্রথম সাইকোথ্রিলার চলচ্চিত্র: শহীদুল ইসলাম খোকনের ‘বিশ্ব প্রেমিক (১৯৯৫)। হুমায়ুন ফরীদিকে এই ফিল্মে সাইকোর ভূমিকায় দেখা যায়।

প্রথম অ্যানিমেশন চলচ্চিত্র:২০১৪ সালে নির্মাতা অমিত আশরাফ কাজ শুরু করেন অ্যানিমেশন ফিল্ম ‘ড্রিম স্টেইজ’ নিয়ে। যদিও পরবর্তীতে এর আর কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি।