প্রেম’স কালেকশন্স বিয়ের সাজে বদল

By: অরণ্য শোয়েব 2018-11-30 13:17:18 লাইফস্টাইল
ছবিঃ shidhir

শীত আসতেই বাতাসে ভেসে আসছে সানাইয়ের সুর। চলছে  বিয়ের মরশুম৷ উৎসব-অনুষ্ঠান লেগেই থাকবে।
আলোকসজ্জা, সানাই, খাওয়া, সাজপোশাক বিয়ের অনুষ্ঠানগুলো জমজমাট থাকে এসব আয়োজনেই। বিয়ে শেষ হওয়ার পরও যেন বিয়ের আমেজ শেষ হয় না। ঘুরে বেড়ানো, দাওয়াত খাওয়া এসবের মধ্য দিয়ে শুরু হয় বর-কনের নতুন জীবন। আর নতুন বউ বলে কথা! সবার নজর থাকে তার ওপরই। কীভাবে সাজল, কোন পোশাক পরল সবকিছুই থাকে আলোচনার কেন্দ্রে। চেহারায় ফুটে ওঠে নতুন জীবনের আনন্দ। সঙ্গে হাতের মেহেদি, গয়না, হালকা ভারী কাজের শাড়ি সবকিছু মিলিয়েই যেন নতুন বউয়ের সাজ।
বিয়ের রাতের সাজে বেনারসি ছাড়া ভাবতে পারেন না কেউই৷ তাই বলে রিসেপশনের দিনেও, তা মোটেই নয়৷ এই স্পেশ্যাল রাতে একটু অন্যরকমভাবেই সাজতে চান মহিলারা৷ বেনারসি ছেড়ে তন্বীরা এখন ওই রাতে সাজতে চান লেহেঙ্গায়৷ সকলের কাছে আকর্ষণীয় হয়ে ওঠার জন্য পোশাক অবশ্যই হতে হবে নজরকাড়া৷ আর যাই হোক জীবনের বিশেষ দিনের সাজ মাটি হলে, সারাজীবনই রয়ে যাবে আক্ষেপ৷ তাই বেশি সময় হাতে নিয়ে ভেবেচিন্তে কিনুন লেহেঙ্গা৷ আর তাই নারী দের প্রথম পছন্দ প্রেম’স কালেকশন্স । পোশাকের মান ও ডিজাইনের নতুনত্বের জন্য প্রেম’স কালেকশন্স শুরু থেকেই আলাদা।  আর তাই সব সময় প্রেম’স কালেকশন্স আলাদা আলাদা ডিজাইনের পোশাক ক্রেতা দের কাছে উপহার দিয়ে থাকে। 
প্রেম’স কালেকশন্স বিয়েতে বর কনের কথা মাথায় রেখে সব সময় বিভিন্ন রকমের পোশাক তৈরি করে থাকে। তাই পরে বর কনে নিজের মত করে সাজে

বৈচিত্র্যময় কনের পোশাক
লাল টুকটুকে বউয়ের প্রবাদটা নাকি এখন ভাঙছেন কনেরা। বিয়ের পোশাকের নকশা করেন— প্রেম’স কালেকশন্স  ডিজাইনারের সঙ্গে কথা বলে তেমনটাই জানা গেল।এখনকার কনেরা অনেক বেশি ফ্যাশনসচেতন। বিয়ের দিনটিতে সবাই চায় একটা নিজস্বতা। লাল, বাদামি বা সোনালির মতো বিয়ের পোশাকের গৎবাঁধা রঙে সেই বৈচিত্র্য খুঁজে পাওয়াটা একটু কঠিন। তাই বিয়ের পোশাকের রঙে এই বৈচিত্র্য কনেরা গ্রহণ করছেন বেশ সহজভাবে।  কনের পোশাকে রঙের এই বৈচিত্র্য অবশ্য দু-তিন বছর থেকেই দেখা যাচ্ছে। ম্যাজেন্টা, নীল, সবুজ, সাদা, বেগুনির মতো রংগুলোর প্রাধান্য থাকবে এবারের কনের পোশাকে।  বিয়ের বাজারে শাড়ির পাশাপাশি লেহেঙ্গা, গাউন, শারারা বাজিমাত করবে বছরজুড়েই। মোগল স্থাপত্যরীতি প্রাধান্য পাবে পোশাকের নকশায়। থাকবে জারদৌসি আর পাথরের ভরাট কাজ।

গয়নায় বাহার
কনেসাজে ভারী নকশার গয়না পরার চলটা ফুরোলেও গয়নার আবেদন কিন্তু এতটুকু ফুরোয়নি নতুন বউয়ের কাছে। আলাদা কয়েকটি হার নয়, বরং গলাজুড়ে ভরাট নকশার চোকার হার পরতে দেখা যাবে কনেকে। পুঁতি বা মুক্তার চার-পাঁচ লহরের মালাও ঝুলতে দেখা যাবে কনের গলায়। এদিকে গয়নার নকশায় এ বছর নানা রঙের কুন্দন আর পাথরের ব্যবহার বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠবে বলে জানালেন নিউ জড়োয়া হাউসের স্বত্বাধিকারী বাদল চন্দ্র রায়। এ বছর সোনা ছাড়াও অন্যান্য ধাতব গয়না পরতে দেখা যাবে বিয়ের কনেকে। এ প্রসঙ্গে কনকের স্বত্বাধিকারী লায়লা খায়ের কনক জানালেন, পোশাকের মতো গয়নার নকশায় স্বাতন্ত্র্য চান কনেরা। আর মেটালের গয়নায় সহজেই এ বৈচিত্র্য তুলে ধরা সম্ভব। আর দামটাও থাকে হাতের নাগালে

বরের ভূষণে
রং মিলিয়ে বর-কনের পোশাক পরার রীতিটা বহাল থাকবে এবারও। তবে একই রঙের পোশাকে নয়, বরং বর-কনের পোশাকে থাকবে রঙের সমন্বয় যেমন কনের শাড়ির জমিনটা লাল হলে বর বেছে নিতে পারেন সাদা শেরওয়ানি। সে ক্ষেত্রে শেরওয়ানির নকশায় প্রাধান্য পাবে লালের ব্যবহার। এমন ধারাই এ বছর চলবে বলে জানালেন তিনি। বরের শেরওয়ানির কাটিংয়ে থাকবে লম্বা প্রিন্স কোটের আদল। হাঁটু বরাবর বা তার একটু নিচ পর্যন্ত নামবে শেরওয়ানির দৈর্ঘ্য। তবে শেরওয়ানিজুড়ে জমকালো নকশার কাজ থাকবে না এবার। শেরওয়ানির জমিনটা হবে একরঙা আর গলা ও হাতে থাকবে চুমকি বা জরির কাজ। শেরওয়ানির সঙ্গে ন্যারো শেপের প্যান্ট পরার চল এবার। পাশাপাশি হাতে বাঁধা পাগড়িটাই বেশি জনপ্রিয় থাকবে বরের কাছে।

মডেল:  শিশির , মুনিয়া,  আর্চি
পোশাক  : প্রেম’স কালেকশন্স
 গয়না:  ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড  
কোরিওগ্রাফি : এস আই   নাট্য
সাজ: আকলিমা আক্তার শান্ছ
ছবি:  গোলাম মোস্তফা