বড় আয়োজনে কানাডায় বিজয় দিবস উদযাপন

By: অরণ্য শোয়েব 2018-12-23 19:02:39 আন্তর্জাতিক
ছবিঃ canada progrm lagre

সফলতার সাথে সবচেয়ে বড় আয়োজনে ঐতিহ্যবাহী সংগঠন বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব মন্ট্রিয়ল যথাযথ মর্যাদা ও স্বত:স্ফূর্ততার সাথে কানাডার মন্ট্রিয়লে মহান বিজয় দিবস উদযাপন করেছে। পার্কভিউ হলে গত ১৫ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় শুরু হয়ে ১৬ ডিসেম্বর বিজয়ের প্রথম প্রহরে স্মৃতিসৌধে পূষ্পস্তবক অর্পনের মাধমে উদযাপন শেষ হয়।

এসোসিয়েশনের দীর্ঘদিনের ঐতিহ্য অনুযায়ী পরিচ্ছন্ন প্রানবন্ত ও জমজমাট এ অনুষ্ঠানটি শতকন্ঠে জাতীয় সঙ্গীত, মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা, কবিতালেখ্য বিজয়ের শব্দাবলি, 
মুক্তিযুদ্ধের সময়কার স্মরনীয় সব গান মুক্তির গান, নৃত্যালেখ্য, জনপ্রিয় শিল্পীদের পরিবেশনায় সঙ্গীতানুষ্ঠান এবং জনপ্রিয় শিল্পী চুমকি'র জমজমাট সঙ্গীত বিচিত্রা ও নৈশভোজ  দিয়ে সাজানো ছিল।

এসময় কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো’র বিজয় দিবস উপলক্ষে পাঠানো বিশেষ শুভেচ্ছা বার্তা প্রধানমন্ত্রী’র  প্রতিনিধি রোজ সিপি হস্তান্তর করেন।
জনপ্রিয় শিল্পী মাহবুবুর রহমান এবং প্রিয় শিল্পী অনুজা দত্তের বিশেষ পরিবেশনার সাথে 
স্মৃতিসৌধের প্রতিকৃতিতে বিজয়ের প্রথম প্রহরে পূষ্পস্তবক অর্পন করা হয়। এ জনপ্রিয় দুই শিল্পী জনপ্রিয় সব দেশের গান দিয়ে এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি করেন দর্শকদের মাঝে।
প্রচুর সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশীর উপস্থিতিতে শতকন্ঠে বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত দিয়ে অনুষ্ঠানটি শুরু হয়।

মহান মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয় এক মিনিট নিরবতা পালনের মধ্য দিয়ে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত মুক্তিযোদ্ধাদের  ফুল দিয়ে বিশেষ ভাবে সম্মান জানান সংগঠনের কর্মকর্তারা।
প্রিয়শিল্পী সাফিনা করিম, নাজনীন নীশা, সুইটি বড়ূয়া, মিলি ইসলাম, শাহ মো. ফায়েক,  কামরুজ্জামান, এ্যান্থনি গোমেজ, মমতাজ পাপিয়া, শরীফ রাহমান রোমেল ও শিশু শিল্পী স্নেহা’র পরিবেশনায় বিভিন্ন ধরনের গান এবং রিমি’র পরিবেশনায় বিশেষ নৃত্যালেখ্য। বিজয়ের শব্দাবলি শীর্ষক কবিতালেখ্যে অংশ নেন জনপ্রিয় দুই বাচিক শিল্পী আফাজউদ্দিন তোতন ও শামসাদ রানা।বিচিত্রানুষ্ঠানে ছিল বাংলাদেশের জনপ্রিয় ফোক শিল্পী চুমকির অনবদ্য জমজমাট পরিবেশনা। উপস্থাপনায় ছিলেন জনপ্রিয় উপস্থাপক নাজনীন নীশা।

সবাইকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব মন্ট্রিয়লের প্রেসিডেন্ট সাংবাদিক মনিরুজ্জামান ও জেনারেল সেক্রেটারী হাফিজুর রহমান।  অনুষ্ঠান তত্ত্বাবধায়নে ছিলেন সাবেক দুই প্রেসিডেন্ট গাজী কমল ও কাজী শহিদ। অনুষ্ঠান ব্যাবস্থাপনায় ছিলেন সংগঠনের ভাইস প্রেসিডেন্টত্রয় হাসান জাহিদ কমল, মাহবুব শিকদার ও কামাল হাসান। সাংস্কৃতিক তত্ত্বাবধায়নে ছিলন জয়েন্ট সেক্রেটারী মমতাজ পাপিয়া ও কালচারাল সেক্রেটারী শাকিল আহমেদ।

রশীদ খান, ড. মোত্তালিব, মমিনুল ইসলাম ভূইয়া, মজিবর রহমান, নুরুজ্জামান দুলাল, 
মোহাম্মদ হোসেন শিল্পী,  লাল শরীফ, মিজান রহমান, মোরসালিন নীপু, হুমায়ুন কবির পাটোয়ারি, আমজাদ হোসেন, সোহেল আহমেদ, আনোয়ার হাওলাদার, মালিক রনি, সাফিয়াল সমির, মাসুম আহমেদ তানভির আহমেদ ছিলেন সার্বিক সহযোগিতায়।
প্রানবন্ত এবং সফল এ অনুষ্ঠানটি শেষে অতিথিরা বিজয়ের আনন্দ নিয়ে ঘরে ফিরেছে।