মিশা-জায়েদ নির্বাচিত হলে আত্মহত্যা করবো

নাজমুল হক তবে সিনেমায় নাম ব্রুসলি।ঢাকাই সিনেমার এই ভিলেন অগণিত সিনেমায় অভিনয় করেছেন।

শুধু দেশেই নয় বরং ওপার বাংলার ছবিতেও অভিনয় করেছেন।শক্তি কাপুর মিঠুনদের মতো নামকরা অভিনেতাদের সাথে পর্দায় ছিলেন।

কথায় আছে ‘দেশের শিল্পীদের দেশের শিল্পিরাই টেনে নিচে নামায়’এ -কথা বারবার মিলে যায় অনেক শিল্পীদের সাথে।নাজমুল হক এ-দেশের একজন জনপ্রিয় অভিনেতা কিন্তু তাকে নিয়েও যেন রাজনীতির শেষ নেই চিত্রপাড়ায়।

কিছুদিন আগে শিল্পী সমিতির জেনারেল মিটিংয়ে কথা বলতে চাওয়াতে তাকে বের করে দিতে চেয়েছিলো সভার সভাপতি সেক্রিটারিরা।কিন্তু চিত্রনায়ক রিয়াজ মেনে নিতে না পারায় একটা সময় তিনি নিজেই বের হয়ে চলেন যান এইসব কর্মকাণ্ড দেখে।

ব্রুসলির ভাষ্যমতে ,জায়েদ খান একজন সফল মিথ্যেবাদী চিত্রপাড়ার।ওনার রাজনীতির প্রতিহিংসা ১৮০জন শিল্পী এবং তিনি যদি এবারও নির্বাচিত হন তাহলে নাচের গ্রূপের মেয়ে এবং ছেলেরা ও ফাইটের ছেলেরা তাদের সদস্যপদ হারাবেন এটা আমি নিশ্চিত করে বলতে পারি।আমি এজিএমে জিজ্ঞাসা করেছিলাম ‘কফি’ খাওয়ার খরচ দুই লাখ টাকা হয় কি করে ?
ব্রুসলি আরো জানান , জায়েদ খান সবার কাছে জানাতেন এই ‘কফি বক্স’ তার নিজের টাকার কেনা !তবে কেন এটা বলা হবে যে ‘কফি’ খাওয়ার খরচ সমিতির বহন করতে হবে ?

ব্রুসলি আরো বলেন -মিশা জায়েদ যদি নির্বাচিত হন তাহলে আমি আত্মহত্যা করবো যদি আমার শিল্পীদের কোনো সমস্যা করেন তিনি।তাদের মতো মিথ্যেবাদী আর নেই !কত সুন্দর কৌশলে আদালতের দেয়া নোটিশ ফিরিয়ে দিলেন তারা ,এটা কি মনে হয় ? উপর থেকে বলা হয়েছে নির্বাচন যেন বন্ধ না হয় তাইকি ?এমনটা হচ্ছে ??

শেষ কথা একটি কথাই বলতে চাই ,মিশা -জায়েদ কে কোনো শিল্পীরাই চায় না এখন।এই দুইজনের উপরে সবাই বিরক্ত এখন।তারা যদি আবারো আসে তাহলে সিনেমা শিল্পকে শেষ করে দিবে তারা।আমরা চাই এখন নতুন কেউ আসুক এবং ভালো কিছু হোক সিনেমার জন্য।

উল্লেখ্য, বয়ফ্রেন্ড,তোলপাড়,একটু প্রেম দরকার,রাগী,হৃদয় জুড়েসহ বেশ কিছু ছবি মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে