ভোটারদের ঢল মৌসুমীর দিকে

তাকে বলা হয় ঢাকাই সিনেমার ‘প্রিয়দর্শিনী ‘ মৌসুমী।ঢাকাই সিনেমার এই জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা এবার নির্বাচন করেছেন।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনের ইতিহাসে প্রথমবার কোনো মহিলা সভাপতি পদে তিনিই লড়ছেন।তার অপরদিকে অন্য প্যানেলে আছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র অসহায় শিল্পীদের চোখেরমনি জনপ্রিয় চিত্রনায়ক জায়েদ খান এবং মিশা সওদাগর।

সকাল বেলা থেকে নানা অনিয়ম এবং শৃঙ্খলা বিনষ্ট হচ্ছে এই অভিযোগ বারবার প্রমাণিত হয়েছে।অনেক প্রযোজক পরিচালক অভিনেতা এবং সংবাদকর্মীরা প্রবেশ করতে পারেনি এফডিসিতে।

যাক নতুন খবর হচ্ছে -সভাপতি প্রাথী মৌসুমীর দিকে অগ্রসর হচ্ছে ভোটাররা।এবং তার দিকেই এখন ভোটারদের ঢল।এবং মিশার ভাগে যথেষ্ট পরিমান ভোটার পেপার পড়েনি বলেও একটুকরো খবর নিশ্চিত করেছেন একটি সূত্র।

ভোট শেষ হতে আর মাত্র দুই ঘন্টা বাকি তবে এখনো নিশ্চিতভাবে কিছুই বলা যাচ্ছে।কিন্তু হাওয়ায় ভেসে আসা অনেক খবরই রটেছে এখন এটি সত্যি যে মিশা-জায়েদের প্যানেলের উপরে আর ভরসা করতে চাচ্ছেন না ভোটাররা।

নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, ২০১৯-২১ মেয়াদের নির্বাচনে মোট ভোটার সংখ্যা হচ্ছে ৪৪৯ জন।

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ২০১৯-২১ মেয়াদের দ্বিবার্ষিক নির্বাচনে সভাপতি পদে লড়াই করছেন চিত্রনায়িকা মৌসুমী ও খলনায়ক মিশা সওদাগর। সাধারণ সম্পাদক পদে জায়েদ খানের প্রতিদ্বন্দ্বী ইলিয়াস কোবরা। সহ-সভাপতির দুটি পদে প্রার্থী হয়েছেন মনোয়ার হোসেন ডিপজল, রুবেল ও নানা শাহ। সহ-সাধারণ সম্পাদক পদে লড়ছেন আরমান ও সাংকো পাঞ্জা। আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পদে লড়ছেন নূর মোহাম্মদ খালেদ আহমেদ ও চিত্রনায়ক ইমন। সংস্কৃতি ও ক্রীড়া সম্পাদক পদে লড়বেন জাকির হোসেন ও ডন।

এছাড়া কার্যকরী পরিষদ সদস্যের ১১টি পদের জন্য প্রার্থী হয়েছেন ১৪ জন। তারা হলেন- অঞ্জনা সুলতানা, রোজিনা, অরুণা বিশ্বাস, আলীরাজ, আফজাল শরীফ, বাপ্পারাজ, রঞ্জিতা, আসিফ ইকবাল, আলেকজান্ডার বো, জেসমিন, জয় চৌধুরী, নাসরিন, মারুফ আকিব ও শামীম খান (চিকন আলী)।

এদিকে কোনো প্রতিযোগী না থাকায় সাংগঠনিক সম্পাদক পদে অভিনেতা সুব্রত, দফতর ও প্রচার সম্পাদক পদে জ্যাকি আলমগীর ও কোষাধ্যক্ষ পদে অভিনেতা ফরহাদ বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।